উদাস পাখি

উদাস পাখির মলাটে উদাসীনতা, পাতায় উদাসীনতা, উদাসীনতা সর্বত্র,
অতীতের কাছে বর্তমান লুকিয়ে এই মলাটে, এই প্রথমবার পরিলক্ষিত,
উপেক্ষা লুকিয়ে বিষন্নতায়,উপলব্ধিতেই শুধু আসেনি,
বা হয়তো এসেছে, ভালো লাগে না রোগে আক্রান্ত হওয়া তখুনি,

মলাট আর পাতার মিলনে এই বই আজে নতুনত্ব হারায়,
কিশলয় তার আসে পাশে, তবু শুকনো পাতা দাগ রেখে যায়,
উন্মাদনা এক অন্য পর্যায়ে, আলাদাই এক নেশা,
ঘোর কাটতে এখন সবে সকাল, পড়ে আছে সারা বেলা,

বেড়াতে যাওয়ার স্থানগুলো হয় মনোমুগ্ধকর, থেকে যেতে ইচ্ছে হয়,
ইচ্ছে মেটালে ফিরে যাওয়ার ইচ্ছে পিছুটানের নামে অস্তিত্বে ধরা দেয়,
বিবর্তনে শরীরের পরিবর্তন ঘটলেও মন এখনো অতীতের নেশায় নেশাগ্রস্ত,
আজ আর ডাল পালা পায় না তাই হয়তো কালচক্রে ঘুরতে অভ্যস্ত,

ইচ্ছে পূরণ করার ইচ্ছে যদি জীবের বাস্তবিক অস্তিত্বের ওপর নির্ভরশীল হয়,
সময়ের গুরুত্ব তখনই যেন বেশি করে উপলব্ধিত হয়,
কিন্তু লক্ষ্যবিন্দুর সাথে জীবন্তের সম্পর্কের যদি ঘটে বিলুপ্তি,
তখন কি লক্ষ্য হবে মিথ্যে, কাজ হবে পন্ড, অতীতের নেশা আর অবসাদ হবে নিত্যসঙ্গী?

পারিপার্শিকে শুধু ঘটনাই ঘটে, দুর্ঘটনা আর ভালো ঘটনার তকমা, আমরাই দিয়ে থাকি,
বিশ্লেষণ আমরা নিজ বুদ্ধি আর দর্শন দ্বারাই যে সাধারণত করে থাকি,
কিন্তু নেশাগ্রস্ত মন আর অবসাদগ্রস্ত মস্তিস্ক যখন করছে অনুভব,
ভ্রমিত করছে না সে, কিভাবে বুঝবে, কিভাবে করবে তুমি প্রমান এই বিশ্লেষণ?

যেমন পুরোনো চাল ভাতে বাড়ে আর পুরোনো মাদকে উত্তম হয় নেশা,
অতীতের নেশা সময়ের সাথে বাড়ে, উপস্থিতি হারায় বর্তমানে দিশা,
মাঝে মধ্যে নেশা করা ভালো ডাক্তাররা আজকাল বলে থাকেন,
পুঁথিগত দর্শনের অসুবিধে, এনারা মাঝে মধ্যের মধ্যিখান দিয়েই নিজেদের শিকড় বিস্তার করে থাকেন,

অনুভূতি খারাপ কিন্তু স্থায়িত্ব নেই, যেমন স্থায়িত্ব নেই কোনো নেশার,
ঘোর কাটলে উপলব্ধিত, সময় পেরিয়ে গেছে কাজ করার,
ছোটবেলায় সবাই ভালো, কারো মনে অন্ধকারের ছোঁয়া নেই,
আক্ষেপ করতে গেলে একটাই, বড়ো হয়ে কেউ টর্চ জালতে শেখেনি,

তাই তো নেশা কাটছে না, ক্ষতিপূরণ হচ্ছে না, মস্তিস্ক ভ্রমিত ইন্দ্রিয়ের জালে,
নানান রকম খাবারে নানান রকমের নেশা কাটে, যদি কেউ সঠিক খাবারের সন্ধান এনে দিতে,
পারিপার্শিকেই রসদ আছে, যদি একবার খুঁটিয়ে দেখতে,
সময় অনুপাতে উপলব্ধিত হয় সবার, আগে হতো যদি সমস্যা ছেড়ে একটু, সমাধানের দিকে নজর দিকে,

সমস্ত লড়াইতেই শেষ লড়াইটা ব্যক্তিত্তের,
পারি না আর হয় না তেই অর্ধেক সমাধান আটকে অস্তিত্বে,
কি হবে ভাঙলে, কি হবে গড়লে, চিন্তায় যদি আসে,
উদাহরণযোগ্য পরিবর্তন সম্ভব, মুক্তি আর আনন্দের সাথে দেখা হবে প্রতি ক্ষনে।

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

Connecting to %s